Uncategorized

সুযোগ ও ঝুঁকি দুটোই দেখছে বিএনপি

বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর প্রথম আলোকে বলেন, সরকার নির্বাচনী ব্যবস্থাসহ সবকিছু নিজেদের নিয়ন্ত্রণে নেওয়ার কারণে যুক্তরাষ্ট্রের এই বিধিনিষেধ এসেছে। এটি দেশের জন্য মর্যাদার নয়। কিন্তু এরপরও বিষয়টি এসেছে এবং তাতে বিএনপির আন্দোলনের যৌক্তিকতা প্রমাণ হয়েছে।

মির্জা ফখরুল উল্লেখ করেন, ‘বিধিনিষেধ যা–ই থাকুক না কেন, আমরা নির্দলীয় তত্ত্বাবধায়ক সরকারের দাবি আদায়ে সচেষ্ট থাকব। সে জন্য আমাদের কর্মসূচি অব্যাহত থাকবে।’ তিনি এ–ও বলেন, সরকার যদি সুষ্ঠু ও অবাধ নির্বাচনের পরিবেশ সৃষ্টি না করে, সে দায় সরকারের ওপরই বর্তাবে। বিএনপি এত দিন যেভাবে কর্মসূচি পালন করে আসছে, এখনো শান্তিপূর্ণ কর্মসূচির মাধ্যমেই আন্দোলন এগিয়ে নেবে।

তবে দলের কোনো আচরণ যুক্তরাষ্ট্রের বিধিনিষেধের আওতায় যাতে না পড়ে, সেটি বিবেচনায় রেখেই বিএনপি তাদের আন্দোলনের কৌশল ঠিক করার কথা বলছে। কিন্তু মাঠের রাজনীতিতে তা কতটা কার্যকর করা সম্ভব হবে, সেই সন্দেহ দলটির নেতাদের অনেকের মধ্যে রয়েছে।

সরকারের ওপর আন্তর্জাতিক চাপ সৃষ্টি হোক, সেটা বিএনপিও চেয়েছিল। দলটির বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাদের বক্তব্যে অনেক সময় তার ইঙ্গিত প্রকাশ পেয়েছিল। দলটির নেতারা পশ্চিমা দেশগুলোর কূটনীতিকদের সঙ্গে গত কয়েক মাসে বেশ কয়েকবার বৈঠক করেছেন। এখন যুক্তরাষ্ট্রের ভিসা নীতিমালা যা এসেছে, তাতে সব রাজনৈতিক দলের দায়ের প্রশ্ন এসেছে। ফলে বিএনপিকে এখন তাদের দাবি আদায়ে কৌশল পাল্টাতে হচ্ছে।

Related Articles

Back to top button